ক্রিকেটে দক্ষিণ আফ্রিকা যেন ভাগ্যবিড়ম্বিত এক নাম। বর্ণবাদের অপবাদ মাথায় নিয়ে দীর্ঘ ২১ বছরের নির্বাসন কাটিয়ে সেই ১৯৯১ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার পর থেকে প্রতিটি বৈষয়িক টুর্নামেন্টেরই হট-ফেবারিট প্রোটিয়ারা।

২০১৯ বিশ্বকাপের পর্দা উঠতে আর মাত্র কিছু দিন বাকি। ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে অংশ নিবে দশটি দেশ। কে হবে এইবারের চ্যাম্পিয়ন সেই নিয়ে চলছে ক্রিকেট বিশেষজ্ঞদের পর্যালোচনা। যে যার নিছের পছন্দমত দলকে বেচে নিচ্ছেন এইবারের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে। ওয়ানডে ক্রিকেটের চার নাম্বার র‌্যাংকিংয়ে অবস্থান করছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

সম্প্রতি শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে সিরিজ নিশ্চিত করেছে দলটি। কিন্তু এই দেশকে ফেভারিট মনে করছেন এক সময়ের এই দলের ক্রিকেটার ৩৬০ ডিগ্রি খ্যাত এবি ডি ভিলিয়ার্স।

হুট করে অবসর না নিলে নিজ দেশ দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে বিশ্বকাপ প্রস্তুতিতে ব্যস্ত থাকতেন তারকা ক্রিকেটার এবি ডি ভিলিয়ার্সও। কিন্তু গতবছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়ে তিনি এখন শুধুই ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট খেলেন।

তিনিও মেতেছেন বিশ্বকাপের আলোচনায়। জানিয়েছেন বিশ্বকাপে তার চোখে ফেবারিট দলগুলোর নাম। যেখানে স্পষ্ট বলেছেন বিশ্বকাপে তার দেশ দক্ষিণ আফ্রিকা ফেবারিট নয়।

ডি ভিলিয়ার্স বলেন, ‘বিশ্বকাপ খুবই কঠিন টুর্নামেন্ট। আমি বিশ্বকাপের তিনটি আসরে খেলেছি এবং এটা কখনোই সহজ মনে হয়নি। আপনি সবসময়ই মনে করবেন যে আপনার স্কোয়াড শক্তিশালী। কিন্তু যখনই মাঠের খেলায় নামবেন, দেখবেন যে আপনার মতো আরো অনেকেই পূর্ণশক্তির দল নিয়ে শিরোপা জিততে এসেছে।’

বিশ্বকাপে নিজ দেশের সম্ভাবনার কথা জানাতে গিয়ে ডি ভিলিয়ার্স বলেন, ‘আমি অবশ্যই বিশ্বাস করি যে বিশ্বকাপে দ. আফ্রিকার সুযোগ রয়েছে। যেমনটা প্রতি আসরেই থাকে। আমরা বিশ্বমানের দল। আমাদের অনেক ম্যাচ জেতানোর মতো খেলোয়াড় আছে। বর্তমান দ. আফ্রিকা দলটা অবশ্যই শিরোপা দৌড়ে আছে। তবু সত্যি বললে আমার চোখে দ. আফ্রিকা বিশ্বকাপে ফেবারিট নয়।’

দক্ষিণ আফ্রিকা ফেবারিট না হলে ডি ভিলিয়ার্সের চোখে বিশ্বকাপের দাবীদার কারা? তিনি জানালেন চারটি নাম, ‘ভারত এবং ইংল্যান্ডকে খুবই শক্তিশালী মনে হচ্ছে। অস্ট্রেলিয়া এরই মধ্যে পাঁচবার বিশ্বকাপ জিতেছে এবং পাকিস্তান দুই বছর আগে ইংল্যান্ডের মাটিতেই চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জিতেছে। আমার মতে এই চারটি দলই ফেবারিট।