ইয়াসির আলীর জন্য এবারের বিপিএলটা ছিল অনেকটাই চ্যালেঞ্জিং। কারণ বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রিয় মানুষগুলোর প্রিয় ক্রিকেটার আশরাফুলের পরিবর্তে দলে জায়গা পান তিনি। অন্যদিকে আশরাফুলের প্রতি মানুষের আশার পারদ ছিল অনেক উপরে। কিন্তু ব্যাটিং ব্যর্থতার কারণে তাকে আর খেলায়নি চিটাগাং ভাইকিংস। আশরাফুলের পরিবর্তে দলে জায়গা পেলে সে সুযোগকে সঠিকভাবে কাজে লাগান ইয়াসির। এখানে যদি তিনি ব্যার্থ হতেন তাহলে অপমানিত হওয়ার ভয় থাকতো তার।

আর বিপিএলের সেই ধারাবাহিকতা ডিপিএলেও দেখিয়ে যাচ্ছেন ইয়াসির। আবাহনী লিমিটেডের বিপক্ষে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা ইয়াসির দারুন এক শতক হাঁকিয়েছেন। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) ওয়ানডে ফরম্যাটে ১১২ বলে ১০৬ রানের ইনিংস খেলে অসাধারণ ব্যাটিংয়ের জন্য সকলের নজর কেড়েছেন তিনি। ডিপিএলের টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটেও হেসেছে তার ব্যাট। খেলেছেন ৪১ রানের ইনিংস। চলতি ওয়ানডে ফরম্যাটে নেমেই ৬৫ রানের ইনিংস খেলেছেন ইয়াসির আলী।

সেঞ্চুরির পর ম্যাচ শেষে সাংবাদিকদের ইয়াসির বলেন, ‘একটা জিনিস মাথায় কাজ করত, আমি যদি ভালোভাবে ফিরে পারি, তাহলে যতই গ্যাপ থাকুক, সব মুছে যাবে। আমি চেয়েছিলাম কষ্ট করে যাব। আল্লাহ আমাকে যদি একদিক থেকে বঞ্চিত করেন, হয়তো অন্য দিক থেকে পথ খুলে দিবেন। ওইভাবেই নিজেকে মানিসিকভাবে প্রস্তুত করছি।’

অনেকে মনে করছেন বাংলাদেশ দলের ৩ নম্বর ব্যাটসম্যানের যে সমস্যা সে সমস্যার সমাধান হিসেবে হয়তো সবচেয়ে ভালো হবেন ইয়াসির আলী। আজ ব্রাদার্স ইউনিয়নের পক্ষে ১১২ বলে ৮ বাউন্ডারি এবং ২ ছক্কার সাহায্যে ১০৬ রান করে অপরাজিত ছিলেন ইয়াসির। দলের অন্য ব্যাটসম্যানদের ব্যাটিং ব্যর্থতায় আবাহনীর কাছে ১৪ রানে হরে ব্রাদার্স।